স্মৃতিতে শেখ কামাল

প্রকাশ : ০৮ আগস্ট ২০১৯, ১২:৪৪

সাইদ আহমেদ বাবু

 

১৯৪৯ সালের ৫ আগস্টের এই দিনে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের জ্যেষ্ঠ পুত্র শেখ কামাল জন্মগ্রহণ করেন গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়ায়। পাঁচ ভাইবোনের মধ্যে তিনি দ্বিতীয়। সদ্য বিবাহিত যুবক। মৃত্যুর মাত্র এক মাস আগে (১৪ জুলাই ১৯৭৫) ক্রীড়াবিদ, ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ‘প্রথম মহিলা ব্লু’ সুলতানা কামাল খুকুর সঙ্গে তার বিয়ে হয়। বিয়ের মেহেদির রং তখনও মুছে যায়নি। এই ক্ষণজন্মা যুবক মাত্র ২৬ বছর বয়সে ১৯৭৫ সালে ১৫ আগস্ট কালরাতে পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে ধানমন্ডির ৩২ নম্বর বাড়িতে জাতির পিতার হত্যাকারী মানবতার ঘৃণ্য শত্রুদের বর্বরোচিত হত্যাযজ্ঞের শিকার হয়ে যে-মাসে জন্মগ্রহণ করেছিলেন সে-মাসেই ঘাতকদের বুলেটের আঘাতে তিনি প্রথম শহিদ হন। বঙ্গবন্ধু যে আদর্শ লালন করে দেশ-জাতিকে এগিয়ে নিয়েছিলেন, তার গতিপথ রুদ্ধ করে দেওয়া হলো ১৯৭৫-এর হত্যাযজ্ঞের মধ্য দিয়ে। বনানীর কবরস্থানে তিনি চিরনিদ্রায় শায়িত আছেন। যদি ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট দুই বোন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও রেহানা ঢাকায় ৩২ নম্বর ধানমন্ডির বাসায় থাকতেন, তাহলে তাদেরও যে হত্যা করা হতো এতে সন্দেহ নেই। বিদেশে থাকায় বেঁচে যাওয়ায় তারা হত্যা-চক্রান্ত থেকে মুক্ত ছিলেন, তা নয়। ঘাতকের বুলেট তাদেরও পিছু পিছু ঘুরেছে। শেখ কামাল ছোটবেলা থেকে বঙ্গবন্ধুর মতো সাহসী ও সাংগঠনিক দক্ষতার অধিকারী ছিলেন। বাংলাদেশের রাজনীতিতে শেখ কামাল যদি তার নিজস্ব ভূমিকা রাখার সুযোগ পেতেন, তাহলে বাংলাদেশের রাজনীতি ও সংবিধানে সমাজতন্ত্র এবং ধর্মনিরপেক্ষতার পুনঃপ্রতিষ্ঠা আরও বেশি সহজ ও দ্রুততর হতো। আজ বেঁচে থাকলে তার বয়স হতো ৭১ বছর।
জাতির পিতার সন্তান হওয়া সত্ত্বেও তিনি নিজে এবং তাদের বাড়ির অন্য সদস্যরা ছিলেন আর দশজন সাধারণ মানুষের মতো। তাদের জীবন ছিল খুব সহজ-সরল। পারিবারিক বন্ধন ছিল অটুট। তার বাল্যকাল কেটেছে শান্ত নিবিড় গ্রাম টুঙ্গিপাড়াতে দাদা-দাদির সাথে। মানুষের প্রতি অসীম মমত্ব ছিল তার। ছোট-বড় সবাইকে আপন করে নেওয়ার অসীম ক্ষমতা ছিল শেখ কামালের। পড়াশোনায় শেখ কামাল ছিলেন খুবই মেধাবী। তার প্রাথমিক শিক্ষা শুরু হয় ঢাকার পল্টনের ডনস্ কিন্ডার গার্টেনে। এরপর ঢাকা শাহীন স্কুল থেকে ১৯৬৭ সালে ম্যাট্রিক এবং ১৯৬৯ সালে ঢাকা কলেজ থেকে ইন্টারমিডিয়েট পাস করেন। উচ্চ শিক্ষার জন্য ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান অনুষদে ভর্তি হন। এ বিভাগ থেকেই সাফল্যের সাথে ১৯৭৩ সালে অনার্স ও মৃত্যুর কিছুদিন আগে তিনি সমাজবিজ্ঞানে এমএ শেষ বর্ষের পরীক্ষা দিয়েছিলেন।
উত্তরাধিকার সূত্রে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নানা মানবিক ও নেতৃত্ব গুণাবলি পেয়েছিলেন শেখ কামাল। এর সঙ্গে শাণিত হয়েছিল সংস্কৃতিবোধ ও ক্রীড়া দর্শন। সংযুক্ত হয়েছিল দেশ ও মানুষের প্রতি অনুপম দরদ এবং দায়িত্ববোধ। খেলার মাঠ থেকে নাটকের মঞ্চ, সংগীতের ভুবন থেকে রাজনীতির ময়দান- সর্বত্র ছিল তার উজ্জ্বল উপস্থিতি। ছিলেন বন্ধু ও সতীর্থদের মধ্যমণি। একই সময় সাংস্কৃতিক চর্চা আর খেলাধুলায় সমানভাবে জড়িত ছিলেন শেখ কামাল। খুব ছোটবেলা থেকেই খেলাধুলা ভালোবাসতেন। স্কুল ও কলেজ-জীবনেই সম্পৃক্ত হন খেলাধুলায়। কিন্তু হঠাৎ ছেদ পড়ে। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে তিনি মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। শেখ কামাল মুক্তিযুদ্ধকালীন সময়ে গঠিত মুজিব বাহিনীর ক্যাম্পে ট্রেনিং নিয়েছেন এবং ট্রেনিং ক্যাম্পের বাছাই, তত্ত্বাবধান এবং সাংগঠনিক কাজে যুক্ত ছিলেন। ভারতে ট্রেনিং শেষে, শেখ কামালকে সংযুক্ত করা হয় মুক্তিবাহিনী চিফ জেনারেল ওসমানীর এডিসি হিসেবে। জেনারেল ওসমানীর সাথে তিনি যুদ্ধকালীন পুরো সময়টা ছিলেন। বিশ্বস্ততা ও দক্ষতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করেছেন, ৯ মাসে এক সাগর রক্তের বিনিময়ে পৃথিবীর বুকে মাথা উঁচু করে দাঁড়াল নতুন এক সার্বভৌম দেশ- বাংলাদেশ। মুক্তিযুদ্ধে বিজয়ের পর তিনি সেনাবাহিনী ত্যাগ করেন এবং পড়াশোনায় মনোনিবেশ করেন, ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ে ফিরে যান। সংস্কৃতি ও ক্রীড়ার প্রতি অফুরন্ত ভালোবাসার কারণে তিনি আবার সংস্কৃতি, খেলাধুলা ও রাজনীতির মাধ্যমে দেশের মানুষের কল্যাণে আত্মনিয়োগ করেন। দেশের পতাকাকে ক্রীড়াঙ্গনের মাধ্যমে সারাবিশে^ পরিচিত করার স্বপ্নই লালন করেছেন আজীবন। বিশ^াস করতেন ক্রীড়াবিদের মাধ্যমেও একটি জাতি পরিচিতি পেতে পারে বিশ্বব্যাপী। এরই উজ্জ্বল উদাহরণ এবারের বিশ্বকাপে বাংলাদেশ ক্রিকেট দল।
বঙ্গবন্ধু যে একজন দক্ষ ফুটবলার ছিলেন তা হয়তো অনেকেরই অজানা। জাতির পিতা ফুটবল খেলতেন স্ট্রাইকার পজিশনে। চল্লিশের দশকে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানে ঢাকা ওয়ান্ডার্স ক্লাবের হয়েই ফুটবল খেলেছেন। দেশ স্বাধীনের পর অন্য অনেক কিছুর মতো দেশের ক্রীড়াঙ্গনেও ছিল বেশ এলোমেলো অবস্থা। সে-সময় শেখ কামাল শুধু খেলোয়াড় হিসেবে নয়, ক্রীড়া সংগঠক হিসেবেও আত্মপ্রকাশ করেন। বন্ধুদের নিয়ে ধানমন্ডির সাতমসজিদ এলাকায় ক্রিকেট, ফুটবলকে আধুনিকতার দিকে নিয়ে যেতে প্রতিষ্ঠা করেন ‘আবাহনী ক্রীড়া চক্র’ ১৯৭২ সালে ইকবাল স্পোর্টিং ক্লাবের নাম পরিবর্তন করে আবাহনী ক্রীড়া চক্র নামকরণ করা হয়। শেখ কামাল আধুনিকতার ছোঁয়ায় উজ্জ্বল করে তোলেন আবাহনীকে। সেই আলো ছড়িয়ে পড়ে গোটা ক্রীড়াঙ্গনে। ফুটবল, ক্রিকেট, হকি- এই খেলাগুলোকে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার স্বপ্ন দেখতেন কামাল। স্বপ্ন দেখতেন একদিন বাংলাদেশ আন্তর্জাতিক ক্রীড়া অঙ্গনে এক পরাশক্তি হিসেবে আবির্ভূত হবে। সেই লক্ষ্যে আমূল পরিবর্তন এনেছিলেন সবক্ষেত্রেই, সদ্ব্য স্বাধীন দেশের আনাচে-কানাচে প্রতিভাগুলো যেন হারিয়ে না যায়, সে-লক্ষ্যে ফুটবল, ক্রিকেটকে ঢেলে সাজাবার মাস্টারপ্ল্যান করেছিলেন শেখ কামাল। ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা ফুটবল, হকি, ক্রিকেটারদের খুঁজে বের করে পর্যাপ্ত সুযোগ-সুবিধা দিয়ে তৈরি করেছিলেন নতুন দিনের জন্য, আপাত লক্ষ্য আইসিসি চ্যাম্পিয়নস ট্রফি। স্বপ্ন কিন্তু এখানেই শেষ নয়, স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়ে আবাহনীর অভিযাত্রা সমৃদ্ধ হয়েছে তার অনন্য প্রজ্ঞা-মেধার মিশেল সম্মিলনে। সে-সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আবাহনীর পাশে দাঁড়িয়েছিলেন। তিনি ক্লাবটিকে সুসংগঠিতভাবে এগিয়ে নিতে নানা পরামর্শ দিয়েছেন। তাতে নতুন প্রাণের সঞ্চার হয়েছিল। আমাদের দেশের ফুটবল ও ক্রিকেট খেলার মান উন্নয়নে শেখ কামাল অক্লান্ত শ্রম দিয়েছিলেন। ক্রীড়া জগতে তিনি রেখেছেন অপরিসীম অবদান। পাশাপাশি নতুন খেলোয়াড় তৈরির জন্য প্রশিক্ষণ শিবির গড়ে তুলেছিলেন। শেখ কামালের অসাধারণ প্রতিভার প্রমাণ পাওয়া যায় আজকের ফুটবল ক্লাব আবাহনীর ইতিহাস থেকেই। শেখ কামাল ক্রিকেট খেলেছেন আজাদ বয়েজ, আবাহনী ও ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ক্রিকেট দলের হয়ে। ছিলেন ফুটবল-বাস্কেটবলের নিয়মিত সদস্য। আর সেখান থেকেই শেখ কামাল একপর্যায়ে দক্ষ সংগঠক হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। তার হাতের ছোঁয়ায় প্রাণ পায় বাংলাদেশের ফুটবল, ক্রিকেট, হকিসহ বিভিন্ন খেলাধুলা। ছিলেন সলিমুল্লাহ মুসলিম হলের বাস্কেটবল টিমের অধিনায়কও। ফুটবল খেলায় তিনি শুধু বাংলাদেশ কেন, গোটা উপমহাদেশেই পশ্চিমা স্টাইলে বিপ্লব এনেছিলেন। সেই ১৯৭৩ সালে আবাহনীর জন্য বিদেশি কোচ বিল হার্ট-কে এনে ফুটবল-প্রেমিকদের তাক লাগিয়ে দিয়েছিলেন! তখন ক্লাব তো দূরের কথা, এই উপমহাদেশে জাতীয় দলের কোনো বিদেশি কোচ ছিল না। ১৯৭৪ সালে আবাহনী যখন কলকাতার ঐতিহ্যবাহী ‘আইএফএ’ শিল্ড টুর্নামেন্ট খেলতে যায়, তখন আবাহনীর বিদেশি কোচ আর পশ্চিমা বেশভূষা দেখে সেখানকার কর্মকর্তা আর সমর্থকদের প্রশংসা পায় এবং পুরো টুর্নামেন্টে অসাধারণ খেলায় আবাহনী ক্রীড়া চক্র দর্শকের অবাক মুগ্ধতায় ভূয়শী প্রশংসা অর্জন করেছিল, মাটি কামড়ে ছোট ছোট পাসে মাঠজুড়ে চমৎকার ফুটবল খেলা উপহার দেওয়ার জন্য। শুধু আবাহনীই না, দলকানা দৃষ্টিভঙ্গির ঊর্ধ্বে উঠে পৃষ্ঠপোষকতা করেছেন ব্রাদার্স ইউনিয়ন ক্লাব, ইস্ট অ্যান্ড স্পোর্টিং ক্লাব, আবাহনীর পাশাপাশি এই ক্লাবগুলোতেও তখন ছিল তরুণ মুক্তিযোদ্ধাদের প্রাধান্য।
শেখ কামাল শুধু খেলাধুলা নয়। স্বাধীনতা-উত্তর যুদ্ধবিধ্বস্ত বাংলাদেশের পুনর্গঠন ও পুনর্বাসন কর্মসূচির পাশাপাশি, সমাজ-চেতনায় উদ্বুদ্ধ করতে সাংস্কৃতিক অঙ্গনে মনোনিবেশ করেছিলেন। সংগীতাঙ্গনে ছিল তার সরব উপস্থিতি। সাংস্কৃতিক সংগঠন ছায়ানটের ওস্তাদ খুরশিদ খানের নিকট থেকে সেতার বাজানোর ওপর প্রশিক্ষণ নেন। ভালো সেতার বাজাতেন তিনি। মঞ্চ নাটকে অভিনয় করতেন, এছাড়া মৃদঙ্গ সাংস্কৃতিক গোষ্ঠীর সহ-প্রতিষ্ঠাতা ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যচক্রের সদস্য ছিলেন। তিনি ঢাকা কলেজে পড়ার সময় সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রাখার জন্য পুরস্কার পান। বন্ধু শিল্পীদের নিয়ে গড়ে তুলেছিলেন ‘স্পন্দন’ নামে একটি ব্যান্ডদল। এই গানের দলের মাধ্যমে তিনি পল্লীগীতি আর আধুনিক নানা সংগীতযন্ত্রের মধ্যে সমন্বয় করে দেশের সংগীত জগতে বিপ্লব ঘটাতে চেয়েছিলেন। তার হাত ধরে এদেশে পপসংগীতের সূচনা হয়েছিল। তার প্রতিষ্ঠিত ‘স্পন্দন শিল্পী গোষ্ঠী’র মধ্য দিয়েই ফিরোজ সাঁই, ফেরদৌস ওয়াহিদদের মতো জনপ্রিয় পপসংগীত শিল্পীরা এসেছেন। মোট কথা সম্পূর্ণভাবে একজন সংস্কৃতিমনস্ক ব্যক্তিত্ব ছিলেন শেখ কামাল। ১৯৬৯ সালে পাকিস্তানি জান্তা সরকার রবীন্দ্রসংগীত নিষিদ্ধ করল ধর্মীয় উগ্রতার পরিচয় দিয়ে। তার প্রতিবাদে রবীন্দ্রসংগীত গেয়ে অন্যদের সাথে অসহিংস প্রতিবাদের অসাধারণ উদাহরণ রাখলেন তিনি। শেখ কামাল ছিলেন বাংলাদেশের নাট্য-আন্দোলনের পুরোধা, ‘ঢাকা থিয়েটার’র অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা। ‘নাট্যচক্র’ নামে একটি নাটকের সংগঠন গড়ে ওঠে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ে। সেই নাট্য সংগঠনের প্রতিষ্ঠাকালীন যুগ্ম আহ্বায়ক ছিলেন শেখ কামাল। এই নাট্য সংগঠনের অভিনয়শিল্পী হয়েই নাট্যজন ফেরদৌসী মজুমদারের সঙ্গে কলকাতায় মঞ্চ নাটকে অভিনয় করতে গিয়েছিলেন তিনি। নাটক শেষে ফেরদৌসী মজুমদার ও শেখ কামালের অটোগ্রাফ নিতে সেদিন দর্শকরা ভিড় করেছিল।
শেখ কামাল বাংলাদেশ ছাত্রলীগের একজন নিবেদিত, সংগ্রামী, আদর্শবাদী কর্মী ও সংগঠক হিসেবে সক্রিয়ভাবে অংশ নেন ছেষট্টির স্বাধিকার আন্দোলন এবং ঊনসত্তরের গণ-আন্দোলনে। ১৯৭০ সালের জাতীয় নির্বাচনে আওয়ামী লীগের জনসমর্থন অর্জনে ও নির্বাচনে জয়লাভে পুরান ঢাকায় তিনি অবদান রাখেন। মাত্র ২৬ বছরের ছোট জীবনে তিনি নিজেকে উজ্জ্বল উদীয়মান নক্ষত্র হিসেবে তুলে ধরতে সক্ষম হয়েছিলেন। একজন ছাত্র-সংগঠক হিসেবে তিনি কখনও নেতৃত্বের শীর্ষে আসতে চাননি। তিনিই ছাত্রলীগকে সংগঠিত করতেন, প্রেরণা জোগাতেন। মুক্তিযুদ্ধ-পরবর্তী ছাত্র-রাজনীতির কেন্দ্রবিন্দুতে ছিলেন তিনি। ছিলেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতা, পরবর্তীতে জাতীয় ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতা।
মাত্র ২৬ বছরের জীবনে তিনি বেশ কিছু দেশ ভ্রমণ করেন। তার মধ্যে যুক্তরাজ্য (লন্ডন), রাশিয়া (মস্কো), জার্মানি (মিউনিখ ও বার্লিন), সুইজারল্যান্ড (জেনেভা), ভারত (কলকাতা, শিলিগুড়ি, ডুয়ার্স, মূর্তিসহ) অনেক গুরুত্বপূর্ণ স্থান।
শেখ কামাল ছিলেন বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী এবং বেঁচে থাকলে তিনি জাতিকে অনেক কিছু দিতে পারতেন। শেখ কামালকে নিয়ে যে মিথ্যাচার জড়ো করা হয়েছিল, তা ছিল বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পরিপ্রেক্ষিত রচনা। বঙ্গবন্ধু পরিবার সম্পর্কে ব্যক্তিগত পর্যায়ে সৃষ্টি করা হয়েছিল গালগল্প। ’৭৫-পরবর্তীতে সময়ে রীতিমতো শেখ কামালকে জাতীয় খলনায়কে পরিণত করা হয়েছিল! ব্যাংক ডাকাতি থেকে শুরু করে এমন কোনো প্রোপাগা-া ছিল না, যা তার বিরুদ্ধে ছড়ানো হয়নি! তাকে হত্যার পর রাজনৈতিক কারণে বহু মিথ্যাচার করে নিন্দা ছড়ানো হয়েছে, যেগুলো পরে মিথ্যা প্রমাণিত হয়েছে।
খুনিরা হয়তো তার প্রাণ কেড়ে নিয়েছে; কিন্তু তার অবদানকে মুছে দিতে পারেনি। দেশের ক্রীড়া ও সংস্কৃতির উন্নতির যে সূচনা করেছিলেন, আজ তা সাফল্যের মুখ দেখছে। শেখ কামাল জীবিত থাকলে দেশের ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক অঙ্গন আরও অনেক সমৃদ্ধ থাকত। ব্যক্তি শেখ কামালের মৃত্যু হলেও, তার কীর্তি-আদর্শ বেঁচে থাকবে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মের মাঝে চিরদিন! ‘বাঙালি তরুণদের জন্য শেখ কামাল এখন রোল মডেল। ৪৫ বছর পরেও শেখ কামালকে কেউ কলঙ্কিত করতে পারেনি। তাই তরুণদের উচিত শেখ কামালের আদর্শ অনুসরণ করা। আজকে দেশে প্রমাণিত বঙ্গবন্ধু পরিবারই সৎ ও সাহসী রাজনীতির প্রতীক। চরিত্র হননের ছোরা দিয়ে এই পরিবারকে প্রশ্নবিদ্ধ করা যাবে না। আজ তিনি বেঁচে থাকলে আমাদের ফুটবলের এ দুরাবস্থা হতো না, ক্রিকেটের মতো ফুটবলেও আমরা হতে পারতাম পৃথিবী সেরা। শুধু ক্রীড়াক্ষেত্র নয়, শিল্প-সংস্কৃতির প্রত্যেকটা ধারায় আমরা আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নেতৃত্ব দিতে পারতাম সামনে থেকে। তাই শেখ কামাল আমাদের নান্দনিক ক্রীড়া সংস্কৃতিক এবং মূল সংস্কৃতির এক উজ্জ্বল প্রতিবিম্ব।

বাংলা বিচিত্রা/ মানিক সরকার/ হামিদ মোহাম্মদ জসিম

পুরনো সংখ্যা
  • ১৭ অক্টোবর ২০১৯

  • ৩ অক্টোবর ২০১৯

  • ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯

  • ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯