পারস্য উপসাগরে যুদ্ধের ঢেউ

প্রকাশ : ২৮ জুলাই ২০১৯, ১৫:৫৪

অনলাইন ডেস্ক

পারস্য উপসাগরে ব্রিটেনের ব্যাপক সামরিক উপস্থিতির মধ্যেই একটি ব্রিটিশ তেল ট্যাংকার আটক করেছে ইরান। নিজেদের একটি তেলের ট্যাংকার আটকের পাল্টা পদক্ষেপ হিসেবে সম্প্রতি ওই ট্যাংকার আটক করে তেহরান। প্রায় এক মাস আগে জিব্রাল্টার প্রণালিতে চার ক্রুসহ ইরানি ট্যাংকার গ্রেস-১ আটক করে ব্রিটিশ রয়্যাল নেভি। কয়েকদিন পর চার ক্রুর মুক্তি দেওয়া হয়। কিন্তু তেহরানের বারবার আবেদন-অনুরোধ সত্ত্বেও ট্যাংকার ছাড়তে অস্বীকার করে আসছে লন্ডন। অবশেষে ‘ইটের বদলে পাটকেল’ নীতি হিসেবে ব্রিটেনের স্টেনা ইমপেরো আটকে দেয় তেহরান। ট্যাংকার আটকের ঘটনাকে সহজভাবে নিচ্ছে না ব্রিটেন। এ-ব্যাপারে মন্ত্রিসভার জরুরি বৈঠক ডাকে দেশটির সরকার। তেহরানকে শিগগির ট্যাংকারটি ছেড়ে দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে ব্রিটেনের মিত্র ফ্রান্স ও জার্মানিও। বৈঠকের আগে ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী জেরেমি হান্ট বলেন, ভয়ঙ্কর পথে এগোচ্ছে তেহরান। সেই সঙ্গে ব্রিটিশ ট্যাংকারগুলোকে হরমুজ প্রণালি এড়িয়ে চলার নির্দেশনা দিয়েছেন তিনি। বিশ্লেষকরা বলছেন, এ ধরনের ছোট্ট একটি ভুল থেকেই শুরু হতে পারে মহাযুদ্ধ। এখন থেকে প্রায় ৩০ বছর আগে ১৯৮৭ সালে ঠিক এভাবেই ইরান-ইরাক যুদ্ধে জড়িয়ে পড়ে ওয়াশিংটন। খবর এএফপি ও বিবিসির।
পরমাণু ও ক্ষেপণাস্ত্র কর্মসূচি নিয়ে ওয়াশিংটন-তেহরান উত্তেজনা অব্যাহত রয়েছে। এর মধ্যে উত্তপ্ত হতে শুরু করেছে তেহরান-লন্ডন সম্পর্কও। চলতি বছরের মে মাসে ওমান সাগরে জাপান ও নরওয়ের দুটি তেল ট্যাংকারে হামলার মধ্য দিয়ে এর শুরু হয়। কোনো তথ্য-প্রমাণ ছাড়াই ওয়াশিংটনের সঙ্গে সুর মিলিয়ে লন্ডনও অভিযোগ করে, হামলার পেছনে তেহরানের হাত রয়েছে। এরপর ৪ জুলাই সিরিয়াগামী ইরানি তেল ট্যাংকার আটক করে ব্রিটেন। লন্ডনের দাবি, ইউরোপীয় ইউনিয়নের নিষেধাজ্ঞা লঙ্ঘন করায় ট্যাংকার আটক করা হয়েছে। ট্যাংকার আটককে অবৈধ উল্লেখ করে ক্ষোভ জানায় ইরান। তেহরানে নিযুক্ত ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূতকেও তলব করে দেশটি। ট্যাংকার আটকের ঘটনায় প্রতিক্রিয়া জানিয়ে পরবর্তী সময়ে ইরানের রেভলুশনারি গার্ড কর্পসের মেজর জেনারেল মোহসেন রেজাই বলেন, ব্রিটেন যদি ইরানি তেল ট্যাংকার ছেড়ে না দেয়, তবে একটি ব্রিটিশ তেল ট্যাংকার আটকে রাখাটা ইরানি কর্তৃপক্ষের দায়িত্বের মধ্যে পড়ে যায়। এরপর একদিনে দুটি ট্যাংকার আটক করে ইরান। কিন্তু কয়েক ঘণ্টা পরই একটি ছেড়ে দেয়। গত ১৯ জুলাই রাতে এক বিবৃতিতে ইসলামি বিপ্লবী গার্ড বাহিনী (আইআরজিসি) জানায়, আন্তর্জাতিক আইন অমান্য করায় হরমুজ প্রণালি থেকে ২৩ ক্রুসহ একটি ব্রিটিশ তেল ট্যাংকার আটক করা হয়েছে। আইআরজিসির দাবি, তেল ট্যাংকারটি ৩টি আইন লঙ্ঘন করেছে। এটি আন্তর্জাতিক জলসীমা থেকে ইরানের জলসীমায় ঢুকে পড়েছিল, নিজেকে শনাক্তকরণের যন্ত্রপাতি বন্ধ করে রেখেছিল এবং আইআরজিসির পক্ষ থেকে বারবার সতর্ক করা হলেও তাতে ভ্রুক্ষেপ করেনি। বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, তেল ট্যাংকারটি আটক করে ইরানের উপকূলে নিয়ে আসা হয়েছে এবং আইনগত বিষয়গুলো খতিয়ে দেখার জন্য এটিকে হরমুজগান প্রদেশের বন্দর ও নৌ চলাচল বিষয়ক সংস্থার কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

বাংলা বিচিত্রা/ মানিক সরকার/ হামিদ মোহাম্মদ জসিম

পুরনো সংখ্যা
  • ১৭ অক্টোবর ২০১৯

  • ৩ অক্টোবর ২০১৯

  • ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯

  • ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯