মুখের দুর্গন্ধ : কারণ ও প্রতিকার

প্রকাশ : ১৭ নভেম্বর ২০১৯, ১২:৫৬

অধ্যাপক ডা. অরূপ রতন চৌধুরী

 

মুখের এই দুর্গন্ধ কেন হয়, তা নিয়ে বিজ্ঞানের গবেষণা বহুকাল যাবত চলে আসছে। সেসব গবেষণা থেকে সুনির্দিষ্টভাবে কয়েকটি কারণকে চিহ্নিত করা গেছে। সেগুলোর মধ্যে-
১. প্রতিবার খাবার গ্রহণে মুখের ভেতরে খাদ্য আবরণ দাঁতের ফাঁকে, মাড়ির ভেতর জমে থেকে ডেন্টাল পাক সৃষ্টি এবং তা থেকে মাড়ির প্রদাহ (পেরিওডেন্টাল ডিজিজ) ২. মুখের যে কোনো ধরনের ঘা বা ক্ষত ৩. আঁকাবাঁকা দাঁত থাকার কারণে খাদ্য কণা ও জীবাণুর অবস্থান ৪. দেহে সাধারণ রোগের কারণে মুখের ভেতরে ছত্রাক ও ফাঙ্গাস জাতীয় ঘা (ক্যানডিজিস) ৫. মুখের ক্যানসার ৬. ডেন্টাল সিস্ট বা টিউমার ৭. দুর্ঘটনার কারণে ফ্রেকচার ও ক্ষত। তাছাড়া দেহের অন্যান্য রোগের কারণেও মুখের দুর্গন্ধ হতে পারে, যেমন- ১. পেপটিক আলসার বা পরিপাকতন্ত্রের রোগ ২. লিভারের রোগ ৩. গর্ভাবস্থা ৪. কিডনি রোগ ৫. রিউমেটিক বা বাতজনিত রোগ ৬. ডায়াবেটিস বা বহুমূত্র ৭. হাইপারটেনশন বা উচ্চ রক্তচাপ ৮. গলা বা পাকস্থলীর ক্যানসার ৯. এইডস রোগ ১০. হৃদরোগ ১১. মানসিক রোগ ১২. নাক, কান, গলার রোগ।
সুতরাং, মুখের স্থানীয়ভাবে কারণগুলো দূর করার পরও যদি দুর্গন্ধ থেকে যায় তবে দেহের অন্যান্য সাধারণ রোগের উপস্থিতির পরীক্ষাগুলো বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক দ্বারা পরীক্ষা করিয়ে নেওয়া ভালো।
দুর্গন্ধ বা দুর্গন্ধযুক্ত শ^াস একটি বিরক্তিকর স্বাস্থ্য সমস্যা। প্রায়শই আক্রান্ত ব্যক্তি তার এমন অবস্থা সম্পর্কে খুব একটা অবগত থাকেন না। তবে সমস্যাটি আশপাশে অবস্থানকারীদের। কেননা সংশ্লিষ্ট ব্যক্তির সঙ্গে কথা বলার সময় যখন দুর্গন্ধযুক্ত শ^াস বেরিয়ে আসে তখন গোটা পরিবেশকে অন্যদিক ঘুরিয়ে দিতে বাধ্য। শুধু পাশর্^ব্যক্তিই যে এর নেতিবাচক প্রভাবে বিরক্ত হন তা কিন্তু নয়। সংশ্লিষ্ট ভুক্তভোগী ব্যক্তিও নানা স্বাস্থ্য সমস্যার সম্মুখীন হন দুর্গন্ধযুক্ত শ^াস ও এর আনুষঙ্গিক কারণে। তাই কেউ কেউ হরেক ব্র্যান্ডের মাউথওয়াস/স্প্রে ইত্যাদি ব্যবহার করে বিরক্তিকর অবস্থা থেকে পরিত্রাণের উপায় খোঁজেন তাতে ফলাফল কতদূর পাওয়া যায়, তা বলতে পারবেন সংশ্লিষ্টরা। কিন্তু বিজ্ঞানীরা বসে নেই, একের পর এক চালিয়ে যাচ্ছেন নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা। তেমনি সম্প্রতি পরিচালিত সমীক্ষা শেষে একদল মার্কিন বিজ্ঞানী একটি নতুন তথ্য উপস্থাপন করেছেন। তাদের ভাষায় দুর্গন্ধযুক্ত শ^াস দূরীকরণে এবং সুগন্ধী শ^াসের জন্য মিন্ট বা পারফিউমের চেয়ে অধিক কার্যকর ভূমিকা রাখতে সক্ষম ম্যাগনোলিয়া ফুল গাছের বাকল বা ছাল।
মুখের দুর্গন্ধ সম্পর্কে সবচেয়ে মজার তথ্যটি হলো যে, এটা ব্যক্তি নিজে বুঝতে পারেন না এবং অবলীলায় সবার সঙ্গে কথা বলে যান; কিন্তু অন্যরা বুঝতে পারেন যারা তার কাছাকাছি থাকেন, এটাই মুখের দুর্গন্ধের একটি বড় সমস্যা। এতে সহকর্মী এবং বন্ধু-বান্ধব ছিটকে যায়, কাছে ঘেঁষতে চায় না। অনেকেই বন্ধু ও প্রিয়জনের সান্নিধ্য থেকে বঞ্চিত হন এবং অপ্রিয় হয়ে যান। এ-রকম অবস্থায় লাজলজ্জা ভুলে নিকটজন কাউকে জিজ্ঞেস করা ভালো যে, তার মুখে কোনো দুর্গন্ধ আছে কি না অথবা কী তার সমস্যা। সবার কাছে লজ্জা পাওয়ার চাইতে এক বন্ধুর কাছে একটু লজ্জা পাওয়া খারাপ নয় নিশ্চয় অথবা নিজের মুখের সামনে হাত রেখে জোরে হাঁ করে বাতাস বের করে নাকের দিকে ফিরিয়ে নিলে নিজেই বুঝতে পারা যাবে মুখে দুর্গন্ধ আছে কি না? এক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় বন্ধু স্ত্রী হলে স্বামী অথবা স্বামী হলে স্ত্রীর পরামর্শ নেওয়া ভালো, সন্তান হলে মাকেও প্রশ্ন করা যায়।

মুখে দুর্গন্ধ হলে ঘরে বসে আপনি যা করবেন
১. একটি পরিষ্কার উন্নতমানের দাঁতের ব্রাশ ও পেস্ট দিয়ে দাঁতের সব অংশ ভেতরে-বাইরে পরিষ্কার করুন (তিনবেলা খাবারের পর)। ২. জিহ্বা পরিষ্কারের জন্য জিবছলা ব্যবহার করুন। বাজারে স্টেনলেস স্টিল অথবা প্লাস্টিকের জীবছুলা পাওয়া যায়। ৩. যে কোনো ধরনের মাউথওয়াস (ক্লোরহেক্সিডিন জাতীয়) দুই চামচ মুখে ৩০ সেকেন্ড রেখে ফেলে দিয়ে আবার অল্প গরম লবণ পানিতে কুলিকুচি করুন। প্রতিদিন অন্তত দুবার সকালে ও রাতে আহারের পর। ৪. অবসর সময়ে মুখের ভেতরে একটি লং বা এলাচির দানা রাখুন। ৫. প্রতিবার আহারের পর (যা কিছু খাবেন যেমন- বিস্কুট, ফলমূল ইত্যাদি জাতীয় খাবার) সম্ভব হলে দাঁত ব্রাশ করুন অথবা ভালোভাবে কুলিকুচি করে ফেলুন। ৬. ধূমপান বা তামাকজাত দ্রব্য জর্দা, পান ইত্যাদি ত্যাগ করুন।

বিশেষভাবে যা করবেন
দাঁত ব্রাশ করলেই শুধু ময়লা বা খাদ্যকণা পরিষ্কার হয় না, কারণ দাঁতের ফাঁকে ফাঁকে বা মাড়ির ভেতরে ভেতরে অনেক সময় খাদ্যকণা জমা থেকে পচন শুরু হয়। তাই যাদের দাঁতের ফাঁকে ফাঁকে খাদ্য জমা হয় বুঝতে হবে তাদের ডেন্টাল ফ্লস (এক ধরনের পিচ্ছিল সুতা) বা ডেন্টাল টুথ পিকস (এক ধরনের জীবাণুমুক্ত শলাকা)-এর সাহায্যে খাদ্য কণাগুলো বের করা প্রয়োজন। এই ডেন্টাল ফ্লস বা সুতা এবং জীবাণুমুক্ত শলাকা ব্যবহারবিধি একজন ডেন্টাল সার্জনের কাছ থেকে জেনে নেওয়া ভালো। অনেক সময় এই ফাঁকগুলো ডেন্টাল ক্যারিজ বা মাড়ির রোগের কারণেও হতে পারে, তাই কোনো সিদ্ধান্তের আগে ডেন্টাল এক্স-রে করিয়ে নেওয়ার পর নিশ্চিত হয়ে চিকিৎসার ব্যবস্থা নিতে হতে পারে।

কী ধরনের চিকিৎসা?
১. মাড়ির প্রদাহ, ডেন্টাল ক্যারিজ, মুখের ক্ষত, কৃত্রিম দাঁতের ও ক্রাউনের অস্বাস্থ্যকর অবস্থা ইত্যাদি চিকিৎসা একজন ডেন্টাল সার্জনের পরামর্শে সারিয়ে তুলতে হবে।
২. মুখের স্থানীয় কারণের সঙ্গে অথবা স্থানীয় কারণ দূর হয়ে যাওয়ার পরও দুর্গন্ধ থেকে থাকলে দেহের অন্যান্য রোগের উপস্থিতি আছে কি না জানতে হবে, এ জন্য যা যা পরীক্ষা-নিরীক্ষা প্রয়োজন সেগুলো করিয়ে রোগ নির্ণয় হওয়ার পর বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকের পরামর্শমতো চিকিৎসা নিতে হবে।
যুক্তরাষ্ট্রের রিগলে কোম্পানির একদল বিজ্ঞানী সম্প্রতি দাঁত ও মুখের দুর্গন্ধে ভুগছেন এমন ৯ জন স্বেচ্ছাসেবীর ওপর সমীক্ষা চালান। প্রাপ্ত তথ্য-উপাত্ত বিশ্লেষণ করে জার্নাল অব এগ্রিকালচার অ্যান্ড ফুড কেমিস্ট্রিতে লেখেন একটি নিবন্ধ। এতে উল্লেখ করা হয়, পুদিনা মুখের দুর্গন্ধ বা দুর্গন্ধযুক্ত শ^াস দূরীকরণে সহায়ক। তবে তার চেয়েও বেশি কার্যকর ম্যাগনোলিয়া গাছের বাকল। আংশিক হিসাবে তুলনা করলে বলা যায়, শুধু মিন্ট বা পুদিনা যেখানে ৩ দশমিক ৬ ভাগ কার্যকর ম্যাগনোলিয়ার সাফল্য সেখানে ৬০ শতাংশ। গবেষকদের মতে, ম্যাগনোলিয়া শুধু মুখের দুর্গন্ধই দূর করে না, একইসঙ্গে এক প্রকার ব্যাকটেরিয়াও বিনাশ সাধন করে, যা দন্ত ক্ষয়ের জন্য দায়ী। গবেষকদের মন্তব্য- মুখের দুর্গন্ধ বা দুর্গন্ধযুক্ত শ^াস সামাজিক ও মানসিকভাবে একটি বড় ধরনের সমস্যা। যার প্রভাব পড়ে নিকটবর্তী বা সহাবস্থানকারীদের ওপর। অথচ ম্যাগনোলিয়া গাছের বাকলকে পুদিনার সঙ্গে মিশিয়ে চুইংগাম তৈরি করলে এবং তা চিবুলে অনাকাক্সিক্ষত অবস্থা থেকে রেহাই পাওয়া যেতে পারে। তাদের আরও গুরুত্বপূর্ণ একটি মন্তব্য হচ্ছে, ম্যাগনোলিয়া ব্যবহারে সন্ধিবাত ও অ্যাজমা থেকেও পরিত্রাণ পাওয়া যেতে পারে।
ব্রিটিশ ডেন্টাল হেলথ ফাউন্ডেশনের প্রধান নির্বাহী ড. নিপেল কার্টার বলেন, সর্বশেষ ওই সমীক্ষার ফলাফল খুবই আশাব্যঞ্জক। কারণ স্বাভাবিক মাত্রার পুদিনা মিশ্রিত মাউথওয়াশ মুখের লালা প্রবাহ বাড়িয়ে দেয়। বিষয়টি নিয়ে আগে গবেষণায় হয়তো মুখের স্বাস্থ্য সম্পর্কে আরও অগ্রগতি পাওয়া যেতে পারে। অবশ্য সংশ্লিষ্ট গবেষকরা স্বাস্থ্যসম্মত দাঁত ও মুখের জন্য প্রতিদিন দুবার দাঁত ব্রাশ করার ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন।

দাঁত পরিষ্কার রাখার উপায়
দাঁত পরিষ্কার রাখার অন্যতম প্রধান উপায় হলো, দিনেরবেলা অর্থাৎ সকালে নাস্তা খাওয়ার পর ও রাতের খাবারের পর দাঁত ব্রাশ করা ও ভালোভাবে প্রতিবার খাবারের পর কুলিকুচি করা।

ব্রাশ করার সঠিক নিয়ম
উপরের পাটির দাঁতের ওপর টুথব্রাশ চালিয়ে নিচের পাটির দাঁতের দিকে নামাতে হবে। আবার নিচের পাটি থেকে উপরের পাটির দিকে ওঠাতে হবে। এভাবে ওপর-নিচে ওঠানামা করিয়ে ব্রাশটিকে সবদিকেই নিতে হবে। তারপর হাঁ করে আবার ভেতরের দাঁতের অংশে ব্রাশ করতে হবে। ভেতরের অংশ ব্রাশ করা হয়ে গেলে দাঁতের উপরের অংশ (খাদ্য চিবানোর অংশগুলোকে ব্রাশ করতে হবে)। এরপর জিহ্বার ওপর খানিকক্ষণ ব্রাশটিকে সামনে-পেছনে ঘষতে হবে। ব্রাশ করা শেষ হয়ে গেলে হাতের আঙ্গুল দিয়ে মাড়িগুলোকে দুই মিনিট ম্যাসেজ করতে হবে। এসব কাজ শেষ হয়ে গেলে ভালোভাবে কুলিকুচি করতে হবে।
নিয়মিত কিছু শক্ত ফলমূল খাওয়া মুখের দুর্গন্ধ দূর করার জন্য ভালো। যেমন- আমলকী, পেয়ারা, জাম্বুরা, আপেল, কামরাঙ্গা ও আহারের সঙ্গে সালাদ ইত্যাদি নিয়মিত খেতে হবে। আজকাল বিজ্ঞানসম্মতভাবে ডেন্টাল ফ্লস বা সুতার ব্যবহার দাঁতের ফাঁক থেকে ময়লা বা খাদ্যকণা দূর করার জন্য অন্যতম সহায়ক হিসেবে বিবেচনা করা হয়।
অতএব সম্ভব হলে দাঁত ব্রাশের পূর্বে ডেন্টাল ফ্লস (পিচ্ছিল এক ধরনের সিল্ক সুতা) প্রতিটি দাঁতের ফাঁকে ফাঁকে ঢুকিয়ে খাদ্যকণা বের করে নিয়ে দাঁত ব্রাশ করার অনেক বেশি উপকারী ও স্বাস্থ্যসম্মত। শেষ কথা হলো, মুখের ভেতরে চুইংগাম ও লবঙ্গ, এলাচি বা স্প্রে যত কিছুই থাক না কেন, এগুলো শুধু সাময়িকভাবে দুর্গন্ধকে দূর করতে পারে, স্থায়ীভাবে নয়। তাই সবচেয়ে বড় স্বাস্থ্যসম্মত ব্যবস্থা হলো, মুখের ভেতর বা দেহের অভ্যন্তরে অন্যান্য রোগের উপস্থিতি নির্ণয় করে তা যথাশীঘ্র চিকিৎসা করা। পরিশেষে মুখের দুর্গন্ধ দূর করার জন্য নিয়মিত দাঁত ব্রাশ, কুলিকুচি- সর্বোপরি একটু সময় নিয়ে দাঁতের ও মুখের যতেœর প্রয়োজন। প্রতিবছর অন্তত একবার ডেন্টাল স্কেলিং বা মাড়ি থেকে খাদ্যকণার শক্ত প্লাক পরিষ্কার করানো অত্যন্ত জরুরি। কারণ ডেন্টাল প্লাক থেকে মাড়ির প্রদাহ হয় এবং মাড়ির প্রদাহ থেকেই মুখে দুর্গন্ধ হয়। এবং সবশেষে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে- ধূমপান, মাদকদ্রব্য ও পান-সুপারি-জর্দার মতো ক্ষতিকর বস্তু ও মুখের দুর্গন্ধ সৃষ্টির সহায়ক বদ অভ্যাসগুলো ত্যাগ করা প্রয়োজন। সেইসঙ্গে অন্যকেও এই বদ অভ্যাস ত্যাগের জন্য সচেতন করা প্রয়োজন। মনে রাখা দরকার, একজন ব্যক্তির ব্যক্তিত্ব ও সৌন্দর্য অনেকখানি নির্ভর করে তার মুখের স্বাস্থ্যগত অবস্থা তথা দুর্গন্ধমুক্ত মুখগহ্বরের ওপর। তাই আর দেরি নয়, আসুন আজ থেকেই মুখের যতেœর ব্যাপারে আমরা সচেতন হই। নিজেকে এবং পরিবারকে সুন্দর দুর্গন্ধমুক্ত সুন্দর মুখের হাসি উপহার দিতে সচেষ্ট হই। একটি সুন্দর মুখের হাসি লাখ/কোটি টাকার চেয়েও মূল্যবান।
লেখক : বিভাগীয় প্রধান ডেন্টাল ইউনিট, বারডেম ১৫/এ, গ্রিন স্কয়ার, গ্রিন রোড, ঢাকা-১২০৫। ফোন : ০১৮১৯২১২৬৭৮

বাংলা বিচিত্রা/ মানিক সরকার/ হামিদ মোহাম্মদ জসিম

পুরনো সংখ্যা
  • ১৭ অক্টোবর ২০১৯

  • ৩ অক্টোবর ২০১৯

  • ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯

  • ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯