প্রশ্নোত্তরে ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’

প্রকাশ : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১৫:২৬

অনলাইন ডেস্ক

 

২০০৪ সালে শেখ মুজিবুর রহমানের লেখা ৪টি খাতা আকস্মিকভাবে তার কন্যা শেখ হাসিনার হস্তগত হয়। খাতাগুলো অতি পুরনো, পাতাগুলো জীর্ণ প্রায় এবং লেখা প্রায়শ অস্পষ্ট। মূল্যবান সেই খাতাগুলো পাঠ করে জানা গেল এটি বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’, যা তিনি ১৯৬৭ সালের মাঝামাঝি সময়ে ঢাকা সেন্ট্রাল জেলে অন্তরীণ অবস্থায় লেখা শুরু করেছিলেন; কিন্তু শেষ করতে পারেন নি। জেল-জুলুম, নিগ্রহ-নিপীড়ন যাকে সদা তাড়া করে ফিরেছে, রাজনৈতিক কর্মকা-ে উৎসর্গীকৃত-প্রাণ, সদাব্যস্ত বঙ্গবন্ধু যে আত্মজীবনী লেখায় হাত দিয়েছিলেন এবং কিছুটা লিখেছেনও, এ বইটি তার সাক্ষর বহন করছে। বইটিতে আত্মজীবনী লেখার প্রেক্ষাপট, লেখকের বংশ পরিচয়, জন্ম, শৈশব, স্কুল ও কলেজের শিক্ষা-জীবনের পাশাপাশি সামাজিক ও রাজনৈতিক কর্মকা-, দুর্ভিক্ষ, বিহার ও কলকাতার দাঙ্গা, দেশভাগ, কলকাতাকেন্দ্রিক প্রাদেশিক মুসলিম ছাত্রলীগ ও মুসলিম লীগের রাজনীতি, দেশ বিভাগের পরবর্তী সময় থেকে ১৯৫৪ সাল অবধি পূর্ব বাংলার রাজনীতি, কেন্দ্রীয় ও প্রাদেশিক মুসলিম লীগ সরকারের অপশাসন, ভাষা আন্দোলন, ছাত্রলীগ ও আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠা, যুক্তফ্রন্ট গঠন ও নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে সরকার গঠন, আদমজীর দাঙ্গা, পাকিস্তান কেন্দ্রীয় সরকারের বৈষম্যমূলক শাসন ও প্রাসাদ ষড়যন্ত্রের বিস্তৃত বিবরণ এবং এসব বিষয়ে লেখকের প্রত্যক্ষ অভিজ্ঞতার বর্ণনা রয়েছে। আছে লেখকের কারাজীবন, পিতা-মাতা, সন্তান-সন্ততি ও সর্বোপরি সর্বংসহা সহধর্মিণীর কথা, যিনি তার রাজনৈতিক জীবনে সহায়ক শক্তি হিসেবে সকল দুঃসময়ে অবিচল পাশে ছিলেন। একইসঙ্গে লেখকের চীন, ভারত ও পশ্চিম পাকিস্তান ভ্রমণের বর্ণনাও বইটিকে বিশেষ মাত্রা দিয়েছে। প্রশ্নোত্তরে ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’র তথ্যাবলি তুলে ধরা হলো-

‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ বইয়ের উপক্রমিকা ও ভূমিকা পর্যন্ত

০১.     ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ গ্রন্থটি কার হাতে লিখিত?
    উত্তর : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।
০২.     কে ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ বইটির ভূমিকা লেখেন?
    উত্তর : বঙ্গবন্ধু-কন্যা শেখ হাসিনা।
০৩.     ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ কয়টি খাতা আকারে পাওয়া যায়?
    উত্তর : ৪টি।
০৪.     কত সালে শেখ মুজিবুর রহমানের লেখা ৪টি খাতা আকস্মিকভাবে তার কন্যা শেখ হাসিনার হস্তগত হয়?
    উত্তর : ২০০৪ সালে।
০৫.     বঙ্গবন্ধু আত্মজীবনী লিখেছেন কোথায় থাকা অবস্থায়?
    উত্তর : বঙ্গবন্ধু আত্মজীবনী লিখেছেন জেলে থাকা অবস্থায়।
০৬.     বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আত্মজীবনী লেখা শুরু করেন কত সাল থেকে?
    উত্তর : ১৯৬৭ সাল থেকে।
০৭.     ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ কোন্ প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান হতে প্রকাশিত?
    উত্তর : দি ইউনিভার্সিটি প্রেস লিমিটেড (টচখ)।
০৮.     ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ প্রথম প্রকাশিত হয় কত সালে?
    উত্তর : জুন ২০১২ সালে।
০৯.     ‘বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনী’ গ্রন্থের গ্রন্থস্বত্ব কার?
    উত্তর : বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্টের।
১০.     ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ গ্রন্থটির প্রচ্ছদ শিল্পী কে ছিলেন?
    উত্তর : সমর মজুমদার।
১১.     বঙ্গবন্ধুর মহাপ্রয়াণের কত বছর পর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’র লেখাগুলো শেখ হাসিনার হস্তগত হয়?
    উত্তর : ২৯ বছর।
১২.     ১৯৭১ সালের ২৫শে মার্চ রাতে বঙ্গবন্ধুকে গ্রেফতারের পর আবার কবে সেনাবাহিনী ৩২নং রোডের বাসায় পুনরায় হানা দেয়?
    উত্তর : পরদিন ২৬শে মার্চ রাতে।
১৩.     ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ ছাড়াও বঙ্গবন্ধু আর কী কী লেখেন?
    উত্তর : কারাগারের রোজনামচা, স্মৃতিকথা, চীন ভ্রমণের কাহিনি।
১৪.     বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্যগণ শাহাদাতবরণের পর শেখ হাসিনা প্রথম দেশে ফেরেন কত সালে?
    উত্তর : ১৯৮১ সালে।
১৫.     শেখ হাসিনা কত সাল হতে বঙ্গবন্ধুর লেখা স্মৃতিকথা, নয়াচীন ভ্রমণ ও ডায়েরি প্রকাশের প্রস্তুতি গ্রহণ করেছিলেন?
    উত্তর : ২০০০ সালে।
১৬.     ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ গ্রন্থটি সম্পাদনার কাজ করেন কে?
    উত্তর : শামসুজ্জামান খান।
১৭.     বঙ্গবন্ধু এভিনিউতে আওয়ামী লীগের এক সমাবেশে ভয়াবহ গ্রেনেড হামলা হয় কত সালে?
    উত্তর : ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট।
১৮.     ‘বাংলার বাণী’ পত্রিকার সম্পাদক ছিলেন কে?
    উত্তর : শেখ ফজলুল হক মণি।
১৯.     ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ গ্রন্থে কত সাল পর্যন্ত পূর্ববাংলার রাজনীতি চিত্রায়িত হয়েছে?
    উত্তর : ১৯৫৪ সাল।
২০.     বঙ্গবন্ধুর আত্মজীবনী কোন্ সময়কালে রাজবন্দি থাকা অবস্থায় লেখা?
    উত্তর : ১৯৬৬-৬৯।
২১.     বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ সম্পাদনার কাজে শুরু থেকে সবসময় প্রয়োজনীয় পরামর্শ দিয়েছেন কে?
    উত্তর : প্রফেসর এ. এফ. সালাহ্উদ্দীন আহ্মদ।
২২.     ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ গ্রন্থের ইংরেজি অনুবাদ করেন কে?
    উত্তর : প্রফেসর ফকরুল আলম।
২৩.     শেখ হাসিনা ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’র ভূমিকা লেখেন কবে?
    উত্তর :০৭ আগস্ট ২০০৭।
২৪.     ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ গ্রন্থের ভূমিকা লেখার সময় শেখ হাসিনা কোথায় অবস্থান করেছিলেন?
    উত্তর : জেলে।
২৫.     ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর নামে চেয়ার স্থাপিত হয় কত সালে?
    উত্তর : ১৯৯৯ সালে।
২৬.     জাপানি ভাষায় বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’র অনুবাদক কে?
    উত্তর : কাজুহিরো ওয়াতানাবে।
২৭.     জাপানি ভাষায় বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ প্রকাশ পায় কবে?
    উত্তর : ২ আগস্ট ২০১৫।
২৮.     চীনা ভাষায় বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ প্রকাশ পায় কবে?
    উত্তর : ২০১৬ সালে।
২৯.     চীনা ভাষায় বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ অনুবাদ করেন কে?
    উত্তর : চাই সি।
৩০.     আরবি ভাষায় বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ প্রকাশ করে কোন্ দেশ?
    উত্তর : ফিলিস্তিন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।
৩১.     হিন্দি ভাষায় বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ প্রকাশ পায় কবে?
    উত্তর : ৮ এপ্রিল ২০১৭।
৩২.     হিন্দিতে কে বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ অনুবাদ করে?
    উত্তর : ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।
৩৩.     বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ ফরাসি ভাষায় অনুবাদ করেন কে?
    উত্তর : প্রফেসর ফ্রান্স ভট্টাচার্য।
৩৪.     বঙ্গবন্ধুর ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ সর্বপ্রথম কোন্ ভাষায় অনূদিত হয়?
    উত্তর : ইংরেজি।
৩৫.     ‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ বইয়ের বিষয়বস্তু কী?
    উত্তর : ইতিহাস ও রাজনীতি।

‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ বইয়ের ১-১০ পৃষ্ঠা পর্যন্ত

০১.     “বসেই তো আছ, লেখ তোমার জীবনের কাহিনি”Ñ এ-কথা বলে বঙ্গবন্ধুকে তার জীবনী লেখায় উৎসাহ প্রদান করেছিলেন কে?
    উত্তর : বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী।
০২.     কে বঙ্গবন্ধুকে আত্মজীবনী লেখার জন্য কিছু খাতা কিনে জেলগেটে দিয়ে গিয়েছিলেন?
    উত্তর : বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণী।
০৩.     বঙ্গবন্ধুর স্ত্রীর ডাক নাম কী ছিল?
    উত্তর : রেণু।
০৪.     বঙ্গবন্ধুর জন্ম কোন্ জেলায়?
    উত্তর : গোপালগঞ্জ।
০৫.     বঙ্গবন্ধুর জন্মের সময় বঙ্গবন্ধুর ইউনিয়ন ছিল ফরিদপুর জেলার কোন্ প্রান্তে?
    উত্তর : সর্ব দক্ষিণের ইউনিয়ন।
০৬.     বঙ্গবন্ধুর ইউনিয়নের পাশ দিয়ে কোন্ নদী প্রবাহিত?
    উত্তর : মধুমতী।
০৭.     মধুমতী কোন্ দুটি জেলাকে ভাগ করে রেখেছে?
    উত্তর : খুলনা ও ফরিদপুর।
০৮.     শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম কোন্ বংশে?
    উত্তর : শেখ বংশে।
০৯.    শেখ বংশের গোড়াপত্তনকারী কে ছিলেন?
    উত্তর : শেখ বোরহানউদ্দিন।
১০.     বঙ্গবন্ধুর বাড়িতে কয়টি দালান ছিল?
    উত্তর : ৪টি।
১১.     “টাকা আমি গুনি না, মেপে রাখি”Ñ এ-কথাটি কে বলেছিলেন?
    উত্তর : কুদরতউল্লাহ শেখ।
১২.     শেখ বংশের সাথে কার লড়াই হয়েছিল?
    উত্তর : রাণী রাসমণির।
১৩.     টুঙ্গিপাড়া শেখবাড়ির পাশেই আরেকটা পুরনো বংশ ছিল, তার নাম কী?
    উত্তর : কাজী বংশ।
১৪.     বঙ্গবন্ধুর দাদার চাচা এবং তার সহধর্মিণীর দাদার বাবা কলকাতা থেকে বাড়িতে চলে আসেন কেন?
    উত্তর : দেউলিয়া হয়ে।
১৫.     বঙ্গবন্ধুর সহধর্মিণীর দাদা ও বঙ্গবন্ধুর দাদা সম্পর্কে কী ছিলেন?
    উত্তর : চাচাতো ভাই।
১৬.     বঙ্গবন্ধুর দাদার নাম কী?
    উত্তর : শেখ আবদুল হামিদ।
১৭.     বঙ্গবন্ধুর নানার নাম কী?
    উত্তর : শেখ আবদুল মজিদ।
১৮.     বঙ্গবন্ধুর ছোট দাদা ইংরেজের দেওয়া ‘খান সাহেব’ উপাধি পান, তার নাম কী ছিল?
    উত্তর : শেখ আবদুর রশিদ।
১৯.     বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের পিতা পেশায় কী ছিলেন?
    উত্তর : সেরেস্তাদার।
২০.     শেখ মুজিব ম্যাট্রিক পাস করে কলকাতায় কোন্ কলেজে ভর্তি হন?
    উত্তর : ইসলামিয়া কলেজে।
২১.     বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব কত বছর বয়সে বিবাহ করেন?
    উত্তর : ১২-১৩ বছর।
২২.     বিবাহের সময় বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের বয়স কত বছর ছিল?
    উত্তর : তিন বছর।
২৩.     বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জন্মগ্রহণ করেন কবে?
    উত্তর : ১৭ মার্চ ১৯২০ সালে।
২৪.     বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের পিতার নাম কী?
    উত্তর : শেখ লুৎফর রহমান।
২৫.     শেখ মুজিবের শিক্ষাজীবন শুরু হয় কোন্ স্কুল থেকে?
    উত্তর : এম. ই. স্কুল।
২৬.     বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মাতার নাম কী?
    উত্তর : সায়েরা খাতুন।
২৭.     “আমার বাবা আমাকে সম্পত্তি দিয়ে গেছেন যাতে তাঁর বাড়িতে আমি থাকি। শহরে চলে গেলে ঘরে আলো জ¦লবে না, বাবা অভিশাপ দেবে।”Ñ অসমাপ্ত আত্মজীবনী’তে এ উক্তি কে করেছেন?
    উত্তর : বঙ্গবন্ধুর মাতা সায়েরা খাতুন।
২৮.     শেখ মুজিবুর রহমানের এক চাচা আইয়ুব সাহেবের আমলে প্রাদেশিক আইনসভার সদস্য ও ডিস্ট্রিক্ট বোর্ডের সদস্য ছিলেন, তার নাম কী?
    উত্তর : শেখ মোশাররফ হোসেন।
২৯.     বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বেরিবেরি রোগে আক্রান্ত হন কত সালে?
    উত্তর : ১৯৩৪ সালে।
৩০.     কোন্ শ্রেণিতে পড়ার সময় শেখ মুজিবুর রহমান বেরিবেরি রোগে আক্রান্ত হন?
    উত্তর : সপ্তম শ্রেণি।
৩১.     বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বেরিবেরি রোগের চিকিৎসা করান কোথায়?
    উত্তর : কলকাতায়।
৩২.     বঙ্গবন্ধুর পিতা মাদারীপুর মহকুমায় সেরেস্তাদার হয়ে বদলি হয়ে যান কত সালে?
    উত্তর : ১৯৩৬ সালে।
৩৩.     বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দ্বিতীয়বার কোন্ বড় রোগে আক্রান্ত হন?
    উত্তর : গ্লুকোমা।
৩৪.     শেখ মুজিব গ্লুকোমা রোগে আক্রান্ত হন কত সালে?
    উত্তর : ১৯৩৬ সালে।
৩৫.     গ্লুকোমা রোগে চক্ষু খারাপ হওয়ার সময় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কোন্ স্কুলে ভর্তি হয়েছিলেন?
    উত্তর : মাদারীপুর হাইস্কুলে।
৩৬.     কোন্ ডাক্তার বঙ্গবন্ধুর চোখের চিকিৎসা করেছিলেন?
    উত্তর : টি. আহমেদ।
৩৭.     বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের চোখের চিকিৎসা কোন্ হাসপাতালে হয়?
    উত্তর : কলকাতা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল।
৩৮.     বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কত সাল থেকে চশমা পরেন?
    উত্তর : ১৯৩৬ সাল।
৩৯.     বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব পুনরায় পড়াশোনা শুরু করেন কত সালে?
    উত্তর : ১৯৩৭ সালে।
৪০.     চোখের অপারেশনের পর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব পুনরায় পড়াশোনা শুরু করেন কোন্ স্কুলে?
    উত্তর : গোপালগঞ্জ মিশন স্কুল।
৪১.     গোপালগঞ্জে ‘মুসলিম সেবা সমিতি’ নামক সংগঠনে শেখ মুজিব কীসের দায়িত্ব পালন করতেন?
    উত্তর : সম্পাদকের।
৪২.     বঙ্গবন্ধু প্রত্যেক বাড়ি বাড়ি মুষ্টির চাল সংগ্রহ করতেন কেন?
    উত্তর : মুসলিম গরিব ছাত্রদের বই ও পরীক্ষার এবং অন্যান্য খরচ দেওয়ার জন্য।

‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’ বইয়ের ১১-২০ পৃষ্ঠা পর্যন্ত

০১.     ১৯৩৮ সালে শেরে বাংলা যখন বাংলার প্রধানমন্ত্রী ছিলেন, হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী তখন কোন্ পদে ছিলেন?
    উত্তর : শ্রমমন্ত্রী।
০২.     শেরে বাংলা ও সোহরাওয়ার্দী গোপালগঞ্জে আসেন কত সালে?
    উত্তর : ১৯৩৮ সালে।
০৩.     ১৯৩৮ সালে বাংলায় প্রধানমন্ত্রী ছিলেন কে?
    উত্তর : শেরে বাংলা এ কে ফজলুল হক।
০৪.     কৃষক প্রজা পার্টি প্রতিষ্ঠিত হয় কবে?
    উত্তর : ১৯৩৮ সালে।
০৫.     শেরে বাংলা ও সোহরাওয়ার্দীর গোপালগঞ্জে আগমন উপলক্ষে আয়োজিত জনসভায় স্বেচ্ছাসেবক বাহিনী থেকে হিন্দু ছাত্রদের সরে পড়ার কী কারণ ছিল?
    উত্তর : কংগ্রেসের নিষেধাজ্ঞার কারণে।
০৬.     শেখ মুজিবুর রহমানের বাড়ি গোপালগঞ্জ সদর হতে কত দূরে?
    উত্তর : ১৪ মাইল।
০৭.     শেখ মুজিবুর রহমান প্রথম কারাবরণ করেন কত সালে?
    উত্তর : ১৯৩৮ সালে।
০৮.     বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রথমবার জেলে যান কী কারণে?
    উত্তর : সহপাঠীকে উদ্ধারের জন্য মারপিট করেছিলেন।
০৯.     প্রথম জেলের সময় বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে মামলার এজহার কী ছিল?
    উত্তর : খুনের চেষ্টা, লুটপাট, দাঙ্গা-হাঙ্গামা।
১০.     শেখ মুজিবের প্রথম হাজতবাস কতদিন স্থায়ী হয়েছিল?
    উত্তর : সাত দিন।
১১.     মামলার আপসের জন্য শেখ মুজিবসহ অন্যদের কত টাকা জরিমানা দিতে হয়েছিল?
    উত্তর : ১ হাজার ৫০০ টাকা।
১২.     শেখ মুজিবুর রহমান কলকাতা গিয়ে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর সাথে দেখা করেন কত সালে?
    উত্তর : ১৯৩৯ সালে।
১৩.     গোপালগঞ্জ ছাত্রলীগ গঠনকালীন সভাপতি ছিলেন কে?
    উত্তর : খন্দকার শামসুদ্দীন।
১৪.     মুসলিম লীগ গঠনকালে বঙ্গবন্ধু গোপালগঞ্জ মুসলিম ছাত্রলীগের কী পদে ছিলেন?
    উত্তর : সম্পাদক।
১৫.     বঙ্গবন্ধু ছাত্রকালীন মিশন স্কুলের প্রধান শিক্ষক ও তার প্রাইভেট শিক্ষক ছিলেন কে?
    উত্তর : রসরঞ্জন সেনগুপ্ত।
১৬.     বঙ্গবন্ধু কত সালে ম্যাট্রিক পরীক্ষা দেন?
    উত্তর : ১৯৪১ সালে।
১৭.     ম্যাট্রিক পরীক্ষায় বঙ্গবন্ধু কোন্ বিষয়ে নম্বর কম পান?
    উত্তর : বাংলা।
১৮.     বাংলা বাদে অন্যান্য বিষয়ে বঙ্গবন্ধু কোন্ বিভাগের নম্বর পেয়ে ম্যাট্রিক পাস করেন?
    উত্তর : দ্বিতীয় বিভাগ।
১৯.     বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ম্যাট্রিক পরীক্ষার পূর্বে কোন্ রোগে আক্রান্ত হন?
    উত্তর : মাম্স্।
২০.     বঙ্গবন্ধুর মাম্স্ হয়েছিল ম্যাট্রিক পরীক্ষার কতদিন পূর্বে?
    উত্তর : একদিন পূর্বে।
২১.     শেখ মুজিব ম্যাট্রিক পরীক্ষা দেন কীভাবে?
    উত্তর : বিছানায় শুয়ে শুয়ে।
২২.     বঙ্গবন্ধু রাজনৈতিক জীবনের প্রথম দিকে কোন্ বিষয়ে আন্দোলন করেন?
    উত্তর : পাকিস্তান আন্দোলন ও মুসলিম রক্ষার আন্দোলন।
২৩.     বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কলকাতায় ইসলামিয়া কলেজে পড়ার সময় কোন্ হোস্টেলে থাকতেন?
    উত্তর : বেকার হোস্টেল।
২৪.     বাংলায় ভয়াবহ দুর্ভিক্ষ হয় কত সালে?
    উত্তর : ১৯৪৩ সালে।
২৫.     বাংলার দুর্ভিক্ষের সময় কোন্ ব্যবসায়ীরা বাংলায় উৎপাত করত?
    উত্তর : মাড়োয়ারিরা।
২৬.     ১৯৪৩ সালের দুর্ভিক্ষের সময় বঙ্গবন্ধু ‘প্রাদেশিক মুসিলম লীগ কাউন্সিলের’ কোন্ পদ অর্জন করেন?
    উত্তর : সদস্য।
২৭.     ১৯৪৩ সালের ভয়াবহ দুর্ভিক্ষের সময় হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী কোন্ মন্ত্রী ছিলেন?
    উত্তর : সিভিল সাপ্লাই মন্ত্রী।
২৮.     বঙ্গবন্ধু ছাত্র থাকাকালে ইসলামিয়া কলেজের প্রিন্সিপাল কে ছিলেন?
    উত্তর : ড. জুবেরী সাহেব।
২৯.     বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বেকার হোস্টেলে থাকার সময় হোস্টেল সুপারিনটেনডেন্ট ছিলেন কে?
    উত্তর : সাইদুর রহমান।

(চলবে)

বাংলা বিচিত্রা/ মানিক সরকার/ হামিদ মোহাম্মদ জসিম

পুরনো সংখ্যা
  • ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯

  • ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৯

  • ২৯ আগস্ট ২০১৯

  • ০৮ আগস্ট ২০১৯